Bank Loot Story written by Avizit Roy avizitRX

বাইরে পাখিদের কিচিরমিচির আর রৌদ্রোজ্জ্বল একটি সুন্দর শুক্রবার সকাল। উষ্ণ আলো এসে প্রবেশ করেছে স্বনামধন্য ব্যবসায়ী রাহুলের আরামদায়ক বসার ঘরে। কিন্তু রাহুলের সেদিকে নজর নেই। তাঁর চোখ রান্নাঘরের খাবার টেবিলে থাকা খোলা ল্যাপটপের উপর। তাঁর চোখে-মুখে আতঙ্কের ছাপ।

বিশ্বাসে তার চোখ প্রশস্ত হয়ে উঠল, তার কপালের রেখাগুলো প্রতিটা সেকেন্ডের সাথে আরও গভীর হয়ে উঠছে। তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, বছরের পর বছর কঠোর পরিশ্রমের ফসল, যেন একটি মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে। তাঁর সমস্ত সঞ্চয় যেন হঠাৎ বাতাসে উধাও হয়ে গেছে।

রাহুলের শিরায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সে দ্রুত তাঁর ফোন হাতে নিল। তার কাঁপতে থাকা আঙ্গুলগুলি একটি পরিচিত নম্বর ডায়াল করছে। ফোন বেজে উঠার প্রতিটি সেকেন্ড অনন্তকালের মতো অনুভূত হচ্ছে তাঁর, উদ্বেগ বাড়তে থাকে। অবশেষে, কলটি সংযুক্ত হল।

লাইনের অপর প্রান্তে, সারা খান, ডিজিটাল জগতে তার দক্ষতার জন্য পরিচিত একজন প্রযুক্তি-সচেতন তরুণী উত্তর দিলেন “হ্যালো?”

“সারা? আমি রাহুল,” সে থরথর করে বলল, তার কণ্ঠ কাঁপছে। “আমার সব শেষ হয়ে গেছে!”

চারপাশে গ্যাজেট এবং কম্পিউটারের যন্ত্রাংশের মাঝে বসে থাকা সারার ভ্রু দুশ্চিন্তায় ফুঁসে উঠল। সে তার কণ্ঠস্বর স্থির রেখে উত্তর দিল, “রাহুল? কি হয়েছে?”
রাহুল তার লিভিং রুমে উদ্বিগ্নভাবে হাঁটতে থাকে, ফোনটি এমনভাবে তাঁর কানের কাছে ধরে রাখে যেন এটি একটি লাইফলাইন। “সারা, আমি আজ সকালে ঘুম থেকে উঠলাম, এবং… আমার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট… একেবারে খালি। কিচ্ছু নেই। আমি সব টাকা-পয়সা লুট হয়ে গেছে!”

বাতাসে ভারী নীরবতা। সারার মন উদ্বেগ ও সংকল্পের মিশ্রণে ঘুরপাক খাচ্ছে। তিনি জানতেন রাহুলের এই প্রয়োজনের সময় তাকে সাহায্য করার জন্য তাকে দ্রুত কাজ করতে হবে।

“শান্ত হোন, রাহুল,” সারা তাকে আশ্বস্ত করল, তার কণ্ঠে অটুট দৃঢ়তা। “আমরা একসাথে এটি বের করব। আমি এখনই আসছি। আপনার কম্পিউটার বা ফোন স্পর্শ করবেন না।”

রাহুল সহজাতভাবে মাথা নাড়ল, যদিও সারা তাকে দেখতে পাচ্ছে না। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি তিনি একা সামলাতে পারবেন না। সারার দক্ষতা এবং সমর্থন তাকে আচ্ছন্ন করে রাখা অন্ধকারে যেন আলোর বাতিঘর হয়ে উঠলো।

ফোন কলটি শেষ হওয়ার সাথে সাথে, রাহুল তার ল্যাপটপের স্ক্রিনের দিকে আবার সতর্ক দৃষ্টি নিক্ষেপ করে। তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের শূন্যতা তার মুখে একটি ঘুষির মতো লাগলো, অজানা সাইবার হুমকির মুখে তার দুর্বলতার একটি নিষ্ঠুর অনুস্মারক।

যখন সে সারার আগমনের জন্য উদ্বিগ্নভাবে অপেক্ষা করছিল, রাহুলের মন ছুটতে লাগলো বিভিন্ন দিকে, উত্তর খুঁজছিল। তিনি সর্বদা তার অনলাইন উপস্থিতি সম্পর্কে নিজেকে সতর্ক বলে মনে করতেন, কিন্তু এখন তিনি নিজেকে প্রশ্ন করছেন যে তিনি আসলেই সচেতন ছিলেন কিনা। হ্যাকিং এবং সাইবার ক্রাইমের জগতটিকে একটি বিশাল এবং বিশ্বাসঘাতক অতল গহ্বরের মতো মনে করতেন, যার মধ্যে যে খোদ তিনি নিজেই পড়ে যাবেন সেটা তিনি কখনোই প্রত্যাশা করেননি।

প্রতিটা সেকেন্ড রাহুলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিচ্ছে। সারার আগমন দেখার আশায় তার চোখ বারবার দরজার দিকে চলে যেতে লাগল।
সারা দ্রুত রাহুলের অ্যাপার্টমেন্টে চলে আসলো। তিনি বসার ঘরে প্রবেশ করে রাহুলকে তার জন্য উদ্বিগ্নভাবে অপেক্ষা করতে দেখলেন। তার চোখ হতাশা এবং আশার মিশ্রণে ভরা।

রাহুলের পাশে বসে, সারা তার ল্যাপটপটি টেবিলের উপর রেখে চালু করল।
“রাহুল,” সে শুরু করল, তার কণ্ঠস্বরে দৃঢ় সংকল্প, “আসুন আপনার অনলাইন ব্যাঙ্কিং ইতিহাস এবং অন্য কোনও প্রাসঙ্গিক অ্যাকাউন্ট পরীক্ষা করে শুরু করি।”

রাহুল মাথা নাড়ল। সারা ডিজিটাল জগতের গভীরে ঢুকে পড়ে, তার আঙ্গুলগুলো কীবোর্ড জুড়ে নাচতে থাকে। সারা অসঙ্গতিগুলি বিশ্লেষণ করার আশায় প্রতিটি ট্রেস যত্ন সহকারে পরীক্ষা করতে শুরু করেন। এছাড়া অপরিচিত আইপি ঠিকানা, অদ্ভুত লগইন প্রচেষ্টা এবং সন্দেহজনক কার্যকলাপগুলোও টুকে রাখতে থাকেন।

সারা রাহুলকে সাম্প্রতিক কোন ঘটনা স্মরণ করতে বলেন যা এই ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত হতে পারে।

“গতকাল রাতেই তো ব্যাংক থেকে একটি ইমেইল আসে। সেটা অনুসরণ করে আমি আমার একাউন্টের পাসওয়ার্ড বদলাই,” রাহুল জানায়।
সারা মনোযোগ সহকারে শুনেছিলেন, তাঁর মন তথ্যগুলি বিশ্লেষণ করে, বিন্দুগুলিকে নির্ভুলতার সাথে সংযুক্ত করে। তিনি রাহুলের ল্যাপটপটি নিয়ে রাহুলের ইমেইলে প্রবেশ করেন।

প্রথম ইমেইলটিতেই তাঁর চোখ আটকে যায়, যার শিরোনামে লেখা ছিল “জরুরি অ্যাকাউন্ট আপডেট প্রয়োজন।” ইমেলটি রাহুলের ব্যাঙ্কের পাঠানো বলে মনে হচ্ছে। ইমেইলটির সারমর্ম হচ্ছে, সাম্প্রতিক নিরাপত্তা লঙ্ঘনের কারণে তাঁর অ্যাকাউন্ট ঝুঁকিতে রয়েছে। এতে বলা হয়েছে যে তার অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত করার জন্য, রাহুলকে প্রদত্ত লিঙ্কে ক্লিক করে তার ব্যক্তিগত তথ্য আপডেট করতে হবে।

লুকানো বিপদের প্রতি অজ্ঞ, রাহুল দ্বিধা ছাড়াই এই লিঙ্কটিতে ক্লিক করেছিলেন। রাহুলের অজানা, লিঙ্কটি একটি চতুরভাবে ডিজাইন করা ফিশিং ওয়েবসাইট। এটি তাঁর ব্যাঙ্কের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের নকল করেছে। ব্যাংকের লোগো এবং ফর্ম-সহ সবকিছু সম্পূর্ণ নিখুঁতভাবে নকল।
সারা ইমেলের ঠিকানায় একটি গড়মিল লক্ষ্য করে, শুধু একটি অক্ষর এদিক ওদিক। তাঁর বুঝতে আর বাকি রইলো না যে এটিই হ্যাকারের পাঠানো মেইল, যা দিয়ে তারা রাহুলের একাউন্ট হ্যাক করেছে।

এসব সন্ধানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কেটে যেতে থাকল। কিন্তু আয়েশার সংকল্প অটুট থাকে। হঠাৎ, তিনি একটি পুনরাবৃত্ত প্যাটার্ন লক্ষ্য করলেন—বিশ্ব জুড়ে বিভিন্ন স্থান থেকে অননুমোদিত লগইন প্রচেষ্টার একটি প্রবাহ। তার চোখ সরু, তার মন ধাঁধাটি বোঝার জন্য দৌড়াচ্ছে।

“অপরাধীরা চিহ্ন রেখে গেছে, রাহুল। কিন্তু তাদের সনাক্ত করতে আমাদের আরও গভীরে যেতে হবে,”‌ সারা বলল, তার কণ্ঠে উদ্বেগ এবং উত্তেজনার মিশ্রণ।

“সারা,” রাহুল উত্তেজিতভাবে বলল, “আমি এমন একজনকে চিনি যে আমাদের সাহায্য করতে পারেন। সালমান সাহেব, একজন সাইবার সিকিউরিটি এক্সপার্ট। আমি বিশ্বাস করি তিনি এই বিষয়ে আমাদের সাহায্য করতে পারবেন।”

“সালমান সাহেব? যিনি দেশ ব্যাংকের হ্যাকারদের ধরেছিলেন?” সারার চোখ জ্বলে উঠল।

“হ্যাঁ, তিনি আমার দূরসম্পর্কের আত্মীয়,” রাহুল জানায়।

“খুবই ভালো, রাহুল,” সারা জবাব দিল, তার কণ্ঠ প্রশংসায় ভরা। “আপনি এখনই সালমান সাহেবের সাথে যোগাযোগ করে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করুন। একসাথে, আমরা এই সাইবার অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনার জন্য একটি শক্তিশালী দল গঠন করব।”

রাহুল মাথা নাড়ল, তার উত্তেজনা নতুন করে আশার অনুভূতির সাথে মিশেছে। তিনি সালমান সাহেবের নম্বর ডায়াল করেন। অন্যদিকে, সারা তাদের প্রাপ্ত প্রমাণের টুকরোগুলো একত্রিত করে বিশ্লেষণ করতে থাকেন।

কয়েক মুহূর্ত উদ্বিগ্ন নীরবতার পর, লাইনের অপর প্রান্তে সালমান সাহেবের কণ্ঠ শুনে রাহুলের মুখ উজ্জ্বল হয়ে উঠল। তিনি দ্রুত ঘটনার বিশদ বিবরণ ব্যাখ্যা করলেন।

সালমান সাহেব মনোযোগ দিয়ে শুনলেন, তাঁর কণ্ঠ শান্ত অথচ উদ্বিগ্ন। তিনি পরিস্থিতির তীব্রতা এবং অবিলম্বে পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারলেন। বিনা দ্বিধায়, তিনি রাহুল এবং সারাকে সত্য উদঘাটনের জন্য তাদের অনুসন্ধানে সহায়তা করতে সম্মত হন।

তাঁরা ব্যক্তিগতভাবে দেখা করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁরা সারার অ্যাপার্টমেন্টে জড়ো হয়, যেটি এখন তাদের তদন্তের জন্য একটি কমান্ড সেন্টারে পরিণত হয়েছে। রুমটি অসংখ্য পর্দায় সজ্জিত ছিল, যেখানে জটিল নেটওয়ার্ক, কোডের লাইন এবং রাহুলের জীবনে অনুপ্রবেশকারী সাইবার অপরাধীদের ফেলে যাওয়া পদচিহ্নগুলো সাজানো হল।

তাঁরা তাঁদের নিজ নিজ ভূমিকায় স্থির হওয়ার সাথে সাথে সারা তাঁদের কর্ম পরিকল্পনার রূপরেখা দিতে শুরু করে। তারা ইন্টারনেটের বিশাল বিস্তৃতি জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ব্রেডক্রাম্বগুলিকে সাবধানতার সাথে অনুসরণ করে হ্যাকারদের রেখে যাওয়া ডিজিটাল পদচিহ্নগুলিকে ট্রেস করবে। তাদের লক্ষ্য শুধু অপরাধীদের শনাক্ত করা নয়, তাদের উদ্দেশ্য ও পদ্ধতিও বোঝা।

ডিজিটাল প্রতারণার জটিল জাল উন্মোচন করতে তিনজন অক্লান্ত পরিশ্রম করতে থাকে। দিনের পর দিন কেটে যেতে থাকে। কিন্তু তাঁদের দৃঢ় সংকল্প অটল রইল।

বিভিন্ন হ্যাকারদের ফোরাম এবং চ্যাটরুম ঘেটে তাঁরা সাইবার অপরাধীদের একটি নেটওয়ার্ক খুঁজে বের করেছে, যারা গোপনীয়তার সাথে অপরাধমূলক কাজ করে। তাদের কাজের মধ্যে আর্থিক লাভ থেকে ব্যক্তিগত প্রতিহিংসা পর্যন্ত সবকিছুই রয়েছে। প্রতিনিয়ত তারা নতুন কৌশল অবলম্বন করছে।

রাহুল বিভিন্ন ফোরাম এবং চ্যাটরুম থেকে তাঁর মতো আরও যারা এই ফাদে পড়ে ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে তাদের সন্ধান পেতে থাকে। তাঁরা খুব শীঘ্রই বুঝতে পারে যে তাঁরা একটি শক্তিশালী প্রতিপক্ষের সাথে মোকাবিলা করছেন।

রাহুল তাঁদের তদন্তের মাঝখানে সারা এবং সালমান সাহেবের থেকে সাধারণ হ্যাকিং কৌশল এবং প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা সম্পর্কে শিখতে থাকেন। তিনি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড, 2FA এবং ফিশিং প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে কীভাবে সতর্ক থাকা যায় সেসব সম্পর্কে জানতে পারেন।

খুব শিঘ্রই তারা একটি টেলিগ্রাম গ্রুপ চ্যাটের সন্ধান পান যেখানে তাঁদের আকাঙ্ক্ষিত সেই হ্যাকাররা রয়েছে। সারা এবং সালমান সাহেব সেই গ্রুপে সাধারণ ব্যবহারকারী হিসেবে চ্যাট করতে শুরু করেন। আস্তে আস্তে তাঁদের পরিচিতি বাড়তে থাকে। কেউ যেন সন্দেহ করতে না পারে সেজন্য তাঁরা নিজেদের নাম আগেই পাল্টিয়ে নিয়েছিলেন।

সারা এবং সালমান সাহেব নিজেদের হ্যাকিং দক্ষতার পরিচয় দিতে থাকেন সেই গ্রুপে। কিছুদিন যেতে না যেতেই তাঁরা হ্যাকারদের ঘনিষ্ঠ হয়ে যান। খুব চতুরতার সাথে তাঁরা এই হ্যাকিং গ্রুপে কাজ করার ইচ্ছার কথা জানান। হ্যাকাররাও তাঁদের কোনো সন্দেহ না করে নিজেদের একটি গোপন চ্যাটিং গ্রুপে তাঁদের যুক্ত করেন। এটিই যেন চাইছিলেন তাঁরা।

“এবার সময় এসেছে শয়তানদের ফাঁদে ফেলার,” সালমান সাহেব উত্তেজিত হয়ে বলেন।

“কিন্তু কীভাবে? ওরা অনেক দক্ষ। যদি কোনোভাবে বুঝে ফেলে তাহলে আমরা বিপদে পড়তে পারি,” রাহুল সংকোচিত হয়ে বলেন।

“আপনি কোনো চিন্তা করবেন না। ওদের খেলা এবার শেষ হতে চলেছে। আমরা ওদের গ্রুপে নতুন কোনো টুল ডাউনলোড করার একটি লিংক পাঠাবো। সাধারণভাবে দেখে এটিকে একটি বিশ্বস্ত ওয়েবসাইটের লিংক মনে হলেও, যখনই ওরা সেই লিংকে ঢুকবে সাথে সাথে তাদের আইপি এড্রেস আমরা পেয়ে যাব।”

“আইপি এড্রেস কি? এটা দিয়ে কী করা যাবে?” জিজ্ঞেস করেন রাহুল।

“আইপি এড্রেস হলো আপনার ইন্টারনেটের ঠিকানা। আপনি যখনই ইন্টারনেটে সংযুক্ত হন, আপনার ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার আপনাকে একটি ঠিকানা প্রদান করে। এই ঠিকানা জানা থাকলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনিরা বের করে ফেলতে পারে ঠিক সেই সময়ে এই ঠিকানাটা কে ব্যবহার করছিল,” ব্যাখ্যা করে সারা।

যেই কথা সেই কাজ। গ্রুপে প্রেরিত লিংকে হ্যাকাররা ঢুকে এবং তাদের আইপি এড্রেস পেয়ে যান সালমান সাহেব। তাঁদের প্রচেষ্টা সফল হয়।

পরের ঘটনা খুব দ্রুত ঘটে যায়। তাঁরা হ্যাকারের আইপি এড্রেস থেকে শুরু করে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য যেমন ব্যবহৃত ইমেইল এবং বিভিন্ন অনলাইন গ্রুপের লিংক আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলির কাছে হস্তান্তর করেন। এই তথ্যগুলো ব্যবহার করে সাইবার অপরাধী নেটওয়ার্কের মূল সদস্যদের গ্রেপ্তার করে একটি সমন্বিত অভিযান করতে সক্ষম হয় র‍্যাব এবং পুলিশ। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয় বেশকিছু ল্যাপটপ, ক্রেডিট কার্ড নকল করার মেশিন, পেনড্রাইভ, হ্যাক করার অন্যান্য সরঞ্জাম, চুরি করা টাকা।

রাহুল এবং তাঁর মতো আরও যারা হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছিল সবাই নিজেদের টাকা এবং একাউন্ট ফেরত পায়। পত্রিকার হেডলাইন হয় তাঁদের পুরো যাত্রা। হ্যাকারদের ধরার এই যাত্রা এবং তাঁদের ত্রয়ী খুব দ্রুতই সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two + eighteen =